কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক প্রশ্নোত্তর প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

সংশয় নিরসন

অনেকে কথা বলার সময় বলে, “ভালো থাকবেন”। এ রকম কথা বললে কি তা শিরকের পর্যায়ে পড়বে?

উত্তর: ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন, নিরাপদে থাকবেন…এ জাতীয় বাক্য ব্যবহারে ইসলামের দৃষ্টিতে কোন আপত্তি নাই। কারণ কোন ঈমানদার ব্যক্তি যখন এ কথাগুলো বলে তখন তার নিয়ত এটাই থাকে যে, ভালো থাকা, সুস্থ থাকা, নিরাপদে থাকা ইত্যাদি একমাত্র আল্লাহর পক্ষ থেকেই হয়ে থাকে। নিজস্ব শক্তি ও যোগ্যতা বলে কেউ তা অর্জন করতে পারে না। এর প্রমাণ …

অনেকে কথা বলার সময় বলে, “ভালো থাকবেন”। এ রকম কথা বললে কি তা শিরকের পর্যায়ে পড়বে? Read More »

ইসলামের দৃষ্টিতে সুস্থতার গুরুত্ব এবং দুটি ভ্রান্তি নিরসন

প্রশ্ন: সুস্থতা ও অবসর আল্লাহ তাআলার নিয়ামত। সুস্থ থাকার জন্য দোয়াও আছে। কিন্তু এক জায়গায় পেলাম, “যে ব্যক্তি অসুস্থ হয় না, সে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উম্মত নয়…। তাহলে এ দ্বারা কী বুঝানো হয়েছে? তাহলে কি আমরা অসুস্থতা জন্য দোয়া করব? দয়া করে বুজিয়ে বলবেন। জাজাকাল্লাহ। উত্তর: নি:সন্দেহে দুনিয়ায় আল্লাহর নিয়ামত সমূহের মধ্যে অন্যতম …

ইসলামের দৃষ্টিতে সুস্থতার গুরুত্ব এবং দুটি ভ্রান্তি নিরসন Read More »

ওযু, নামায, যে কোন কাজ একবার করার পর মনে হতে থাকে যে, ঠিক মতো হয় নি

প্রশ্ন: ওযু, নামায, যে কোন কাজ একবার করার পর মনে হতে থাকে যে, ঠিক মতো হয় নি। একবার ওযু করার পর সন্দেহ হয় যে, ঠিক মতো করলাম কি না। সে জন্য বারবার ওযু করি। তদ্রূপ নামাজও বারবার পড়ি। এক্ষেত্রে আমি কী করব? ❖ উত্তর: এটি একটি শয়তানী কুমন্ত্রণা ও মানসিক সমস্যা। এর মাধ্যমে শয়তান মানুষের …

ওযু, নামায, যে কোন কাজ একবার করার পর মনে হতে থাকে যে, ঠিক মতো হয় নি Read More »

শয়তানী ওয়াসওয়াসা (কুমন্ত্রণা) এবং সন্দেহ রোগ কি এবং কেন

প্রশ্ন: শয়তানী ওয়াসওয়াসা (কুমন্ত্রণা) এবং সন্দেহ রোগ কি এবং কেন? এ থেকে বাঁচার উপায় কি? ———————— উত্তর: ওয়াসওয়াসা হল, ইবাদতে বিঘ্ন সৃষ্টি করার জন্য বা পাপ ও অন্যায় কাজে প্ররোচিত করার জন্য শয়তানের পক্ষ থেকে অন্তরে কুমন্ত্রণা। আল্লাহ তাআলা বলেন: مِن شَرِّ الْوَسْوَاسِ الْخَنَّاسِ الَّذِي يُوَسْوِسُ فِي صُدُورِ النَّاسِ “তার অনিষ্ট থেকে (আশ্রয় প্রার্থনা করছি), …

শয়তানী ওয়াসওয়াসা (কুমন্ত্রণা) এবং সন্দেহ রোগ কি এবং কেন Read More »

আদিম যুগের মানুষরা কাপড় পড়তো না, আগুন জালাতে জানতো না, কথাও বলতে জানতো না, আসলে এ কথাগুলো কি সঠিক?

প্রশ্ন: আদিম যুগের মানুষরা কাপড় পড়তো না, আগুন জালাতে জানতো না, কথাও বলতে জানতো না, তারা ছিল অসভ্য ও বর্বর। কেন তারা এমন ছিল? আসলে এ কথাগুলো কি সঠিক? ——————– উত্তর: “আদিম যুগের মানুষ আগুন জ্বালাতে জানতো ন, কথা বলতে জানতো না, কাপড় পড়তো না, তারা ছিলো অসভ্য ও বর্বর…।” এগুলো ঐ সকল নাস্তিক ও …

আদিম যুগের মানুষরা কাপড় পড়তো না, আগুন জালাতে জানতো না, কথাও বলতে জানতো না, আসলে এ কথাগুলো কি সঠিক? Read More »

একটি সংশয়ের জবাবঃ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কেনো সেই গামেদি বংশের জিনা কারীনী মহিলাকে পাথর মেরে মৃত দণ্ড দিয়েছিলেন যদিও তিনি তওবা করেছিলেন?

প্রশ্ন: আমরা জানি, আদম আ. যে ভুল করেছিলেন তার জন্য তওবা করেছেন। আর আল্লাহ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে, কেউ অন্যায় করার পর খাস দিলে তওবা করলে আল্লাহ তার গুনাহ মাফ করবেন। তাহলে আমার প্রশ্ন হল, হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে এক মহিলা এসে ব্যভিচারের শাস্তি গ্রহণ করতে চাইলে যখন তার শিশুটি …

একটি সংশয়ের জবাবঃ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কেনো সেই গামেদি বংশের জিনা কারীনী মহিলাকে পাথর মেরে মৃত দণ্ড দিয়েছিলেন যদিও তিনি তওবা করেছিলেন? Read More »

মনের মধ্যে দ্বীন-ইসলাম, আল্লাহ, রাসূল ইত্যাদি সম্পর্কে সংশয়, সন্দেহ ও কুচিন্তা জাগ্রত হলে তা থেকে মুক্তির উপায়

প্রশ্ন: কখনো কখনো মনে সংশয় ও সন্দেহ সৃষ্টি হয় যে, আমি যে ধর্ম পালন করছি, সেটা আসলে সঠিক নাকি সঠিক নয়। যদি মনে এ ধরণের কু চিন্তা উঁকি দেয় তাহলে কী করণীয়? এ থেকে মুক্তির উপায় কি? কারো মধ্যে যদি এই ধরণের সংশয় দেখা যায় তাহলে কি সে এর মাধ্যমে ইসলাম থেকে বের হয়ে যাবে …

মনের মধ্যে দ্বীন-ইসলাম, আল্লাহ, রাসূল ইত্যাদি সম্পর্কে সংশয়, সন্দেহ ও কুচিন্তা জাগ্রত হলে তা থেকে মুক্তির উপায় Read More »

একটি গোমরাহী মূলক কথা: “ফরজ ইবাদত হল নিজের জন্য, সুন্নাত রাসুলের জন্য আর নফল নিজের জন্য!!

প্রশ্ন: আমরা অনেকের কাছে শুনে থাকি “ফরজ ইবাদত হল নিজের জন্য, সুন্নাত রাসুলের জন্য আর নফল নিজের জন্য।” কথাটা কি ঠিক? আমার স্বল্প ইলমে কেন যেন মনে হয়, কথাটাতে একটা শিরকি ভাব আছে। ইবাদত আবার নবীর অথবা নিজের জন্য কিভাবে হয়!? ইবাদত তো শুধু আল্লাহর জন্য হবে! তাই, শেইখের কাছে অনুরোধ রইল, বিষয়টা একটু পরিষ্কার …

একটি গোমরাহী মূলক কথা: “ফরজ ইবাদত হল নিজের জন্য, সুন্নাত রাসুলের জন্য আর নফল নিজের জন্য!! Read More »